টেকইনফো এ-আই https://www.techinfoai.com/2022/08/dutch-bangla-bank-account-creation-all-process.html

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম ২০২২

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম

আধুনিকতার এই যুগে এসে ব্যাংক একাউন্ট লাগে না এমন মানুষ নাই বললেই চলে। তাহলে আপনি ব্যাংক একাউন্ট খুলবেন কোন ব্যাংকে? নিশ্চয়ই যে ব্যাংক আপনাকে ২৪ ঘণ্টা সমান সার্ভিস দিবে এবং অতি জনপ্রিয় ব্যাংক। হ্যাঁ, আজকে আমরা অতি জনপ্রিয় এবং সর্বাধিক সেবা দেওয়া ব্যাংক ডাচ বাংলা একাউন্ট খোলার নিয়ম জানবো।

১৯৯৫ সালে বাংলাদেশ এবং নেদারল্যান্ডের যৌথ উদ্যোগে  ডাচ বাংলা ব্যাংক প্রতিষ্ঠিত হয়। সেই থেকে একের পর এক সার্ভিস যুক্ত করে গ্রাহকদের একটি সর্বাধিক সেবা দানকারী লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। ডাচ বাংলা ব্যাংক মূলত ব্যাংকিং সেবা, এটিএম সেবা, কনজিউমার ব্যাংকিং, কর্পোরেট ব্যাংকিং এবং বিনিয়োগ ব্যাংকিং সেবা দিয়ে থাকে।

আজকে আমরা জানবো, ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম, ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করার উপায়, ডাচ বাংলা ব্যাংক ডিপিএস লাভ কত, ডাচ বাংলা ব্যাংক বৃত্তি সুবিধা শিক্ষা খাতে যেভাবে ভুমিকা রাখে।চলুন জেনে নেওয়া যাক, ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সহ বিস্তারিত সকল তথ্য।

আরও পড়ুনঃ ব্যাংক লোন পাওয়ার উপায় | ব্যাংক লোন পাওয়ার সহজ উপায়

    ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম

    ডাচ বাংলা ব্যাংক বা ডিবিবিএল ব্যাংক একাউন্ট খোলার আগে আপনাকে জানতে হবে ডাচ বাংলা একাউন্ট কত প্রকার এবং কি কি। এরপর সিদ্ধান্ত নিতে হবে আপনি কোন একাউন্ট খুলবেন এবং কি উদ্দেশ্য নিয়ে খুলবেন।

    ডাচ বাংলা একাউন্ট দুই ধরনের হয়ে থাকে। যেমনঃ

    ১)  ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট।

    ২) ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিংস একাউন্ট

    ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়মানুযায়ী এই দুই ধরনের ব্যাংক একাউন্ট খুলতে পারবেন। আর এই দুই ধরনের একাউন্ট খোলার জন্যই আপনাকে একই  ডকুমেন্টস এবং তথ্য দরকার হবে। শুধু মাত্র ডাচ বাংলা স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার জন্য জাতীয় পরিচয় পত্র না হলেও হবে। সেখানে জন্ম নিবন্ধন কার্ডের ফটোকপি বা স্টুডেন্ট আইডির ফটোকপি ব্যবহার করা যাবে। তবে জাতীয় পরিচয় পত্র হলে ভালো হয়। 

    এবার জেনে নেওয়া যাক ডাচ ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়মানুযায়ী কি কি দরকার হবে। জেনে নেওয়া যাক ফর্ম সহ বিস্তারিত তথ্যঃ

    ১) একাউন্ট খুলতে চাওয়া ব্যক্তির সদ্য তোলা ২ কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি।

    ২) জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি।( স্টুডেন্টের বেলায় জাতীয় পরিচয় পত্র না থাকলে স্টুডেন্ট আইডি বা জন্ম নিবন্ধন কার্ডের কপি ব্যবহার করবেন)।

    ৩) পাসপোর্টের ফটোকপি, ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফটোকপি।( যদি থাকে বা ব্যাংক চেয়ে থাকে বিশেষ ক্ষেত্রে)।

    ৪) নমিনি করতে চাওয়া ব্যক্তির জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি। এবং সদ্য তোলা ২ কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি।

    ৫) সচল ব্যক্তিগত মোবাইল নাম্বার। (এই নাম্বারে লেনদেনের সব তথ্য আপডেট জানান হয়)।

    উপরোলিখিত ডকুমেন্ট নিয়ে আপনার নিকটস্থ ডাচ বাংলা ব্যাংকে যোগাযোগ করতে হবে। সেখানে একাউন্ট খোলার কথা জানাতে হবে। পরবর্তী সকল কার্যক্রম ব্যাংক থেকে করা হবে। আর সকল কার্যক্রমে তথ্য দিয়ে আপনি সাহায্য করবেন। ফর্ম পূরণ করার জন্য ফর্মে যেসব তথ্য দেওয়া লাগে তা ফর্মের মাধ্যমে জেনে নিন। ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট ফর্ম দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

    ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করার উপায়

    মূলত দুই ভাবে ডাচ বাংলা একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করা যায়।

    ১) নেক্সাচ পে অ্যাপ

    ২) ডাচ বাংলা ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং

    নেক্সট পে অ্যাপ থেকে ডাচ বাংলা একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করার উপায়

    নেক্সট পে অ্যাপ থেকে ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্টের ব্যালেন্স চেক করার জন্য কুনিও উপায় সিরিয়াল অনুযায়ী উল্লেখ করা হলোঃ

    ১) মোবাইলের প্লে স্টোর থেকে নেক্সট পে অ্যাপ ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নিতে হবে।

    ২) সচল মোবাইল নাম্বার, জাতীয় পরিচয়পত্র নাম্বার এবং নিজের ছবি তুলে অ্যাপটিতে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

    ৩) নেক্সট পে অ্যাপ থেকে ডাচ বাংলা একাউন্টটি একটিভ করার জন্য একই নাম্বার থেকে ডাচ বাংলা হেল্প লাইন ১৬২২২ নাম্বারে কল করতে হবে।

    ৪) হেল্পলাইনে কল করে কাস্তমার ম্যানেজারের সাথে কথা বলতে হবে।

    ৫) কাস্টমার ম্যানেজারকে জানাতে হবে আপনার পেন্ডিং একাউন্টটি নেক্সট পে তে একটিভ করতে চান।

    ৬) কাস্তমার ম্যানেজার একাউন্টটি আপনার কি না তা নিশ্চিত হতে কিছু তথ্য জিগ্যেস করবে। তার সঠিক উত্তর দিতে হবে।

    ৭) এবার কাস্তমার ম্যানেজার নিশ্চিত হয়ে আপনার একাউন্টটি একটিভ কর দিবেন।

    ৮) এবার নেক্সট পে অ্যাপ ওপেন করে পাসওয়ার্ড সেট করে লগইন করুন।

    আপনি নেক্সট পে অ্যাপ এ সফল ভাবে লগইন করতে সক্ষম হয়েছেন। এবার এখানে add card অপশন ক্লিক করে আপনার ডাচ বাংলা একাউন্ট করার পর আপনাকে দেওয়া কার্ড নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড বসিয়ে আপনার ব্যালেন্স দেখতে পাবেন।

    আরও পড়ুনঃ দেখুন কোন ব্যাংকে ডিপিএস এর লাভ বেশি ২০২১ (Profit Amount Of DPS)

    ডাচ বাংলা ব্যাংক ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করার উপায়

    ওয়েবসাইটে লগইন করে তথা অনলাইনে ডাচ বাংলা একাউন্ট দেখা এবং সকল প্রকার লেনদেন করা যায়, একে ইন্টারনেট ব্যাংকিং বলা হয়। এই পদ্ধতি হলো মূলত সরাসরি ডাচ বাংলা ব্যাংকের ওয়েবসাইটে ইউজার আইডিতে প্রবেশ করে আপনার ব্যাংক একাউন্ট ব্যালেন চেক করা সহ সকল ধরনের ব্যক্তিগত কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব। চলুন জেনে নেওয়া যাকঃ

    ইন্টারনেট মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে একাউন্ট ব্যালেন্স চেক কিংবা মানি ত্রান্সফার করার জন্য প্রথমে ব্যাংকের মাধ্যমে একটি ছোট প্রসেসের মাধ্যমে অনুমোদন আনতে হবে। এজন্য নিচে উলেখিত বিষয়গুলি দরকার হবে।

    ১) পাসপোর্ট সাইজের ছবি।

    ২) সচল  মোবাইল নাম্বার।

    ৩) ব্যাংক একাউন্ট

    ব্যাংকের ইন্টারনেট ব্যাংকিং চালু করার জন্য ব্যাংকে একটি ফর্ম পূরণ করে জমা দিতে হবে। ফর্মটি এখান থেকে প্রিন্ট করে পূরণ করে ব্যাংকে জমা দিতে পারেন। ইন্টারনেট ব্যাংকিং সেবা চালু করতে সর্বাধিক ৩ দিন পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।

    ইন্টারনেট ব্যাঙ্কিন একাউন্ট চালু হলে আপনার মোবাইলের মাধ্যমে একটি ইউজার আইডি এবং অনটাইম পাসওয়ার্ড পাঠানো হবে। সেই পাসওয়ার্ড এবং ইউজার আইডি ব্যবহার করে ডাচ বাংলা ব্যাংকের ওয়েবসাইটের ইউজার লগইন পেজে গিয়ে লগইন করে পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করে নিতে হবে। ডাচ বাংলা ইউজার আইডিতে লগইন করার জন্য এখানে ক্লিক করুন

    এখান থেকে ব্যালেন্স চেক থেকে শুরু করে বিকাশ, নগদ, রকেট সব ভাবে টাকা  ট্রান্সফার করতে পারবেন।

    এছাড়াও আপনি চাইলে এটিএম বুথ থেকে আপনার আইডি পাসওয়ার্ড, কার্ড ব্যবহার করে ব্যালেন্স চেক করতে পারেন। এতক্ষণে ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম এবং ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করর উপায় জানতে পারলাম। এবার জেনে নেওয়া যাক ডাচ বাংলা ব্যাংক ডিপিএস লাভ কত এবং কিসে উপর ডিপিএস লাভ নির্ভর করে।

    ডাচ বাংলা ব্যাংক ডিপিএস লাভ কত 

    ডাচ বাংলা ব্যাংক ডিপিএস ডাচ বাংলা ব্যাংকের একটি গ্রাহক সেবা। তবে এই সেবা গ্রহনে সকল গ্রাহক সমান লাভ পাবে না। এর অন্যতম কারণ, সকল গ্রাহক একই পরিমাণ মাসিক কিস্তিতে এবং সমান সময়ের জন্য ডিপিএস করেন না। তবে একই টাকা এবং একই সময়ের জন্য ডিপিএস করলে নিশ্চয়ই সমান লাভ পাবে সকল গ্রাহক।

    ডিপিএস করার ক্ষেত্রে সুবিধা অসুবিধা এবং শর্ত প্রযোজ্য। যা ডাচ বাংলা ব্যাংকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে মাধ্যমে গ্রাহকদের জানান  হয়ে থাকে।

    আরও পড়ুনঃ  সোনালি ব্যাংক ডিপিএস আদ্দপান্থ - ২০২২ 

    ডাচ বাংলা ব্যাংক বৃত্তি সুবিধা

    প্রতি বছর ডাচ বাংলা ব্যাংক সারাদেশের মধ্যে গরীব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মোট ১০২ কোটি টাকার মেধাবৃত্তি প্রদান করে থাকে। যা শিক্ষা খাতে দেশের জন্য একটি বড় অবদান রাখে। কারণ, দেশের গরিব মেধাবি শিক্ষার্থীরা আর্থিক সহজগিতা পেলে অনেক দুর এগিয়ে যেতে পারে।

     যে জন্য হাজার হাজার শিক্ষার্থীকে অকালে শিক্ষা জীবন থেকে ঝরে পড়তে হয় না। আরও সহজ ভাষায় বলতে গেলে বলা যায়, ছাত্রছাত্রী ঝরে পরে রোধে ডাচ বাংলা ব্যাংক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখছে। যা একই সাথে তাদের জনপ্রিয়তার একটি কারণ হয়েও দারিয়েছে।

    আরও পড়ুনঃ অগ্রণী ব্যাংক লোন সম্পর্কে বিস্তারিত এই লিংকে

    ডাচ বাংলা সম্পর্কিত সর্বশেষ

    আজকে আমরা জেনেছি ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম। জেনেছি ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত। আশা করছি আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে সম্পূর্ণ বিষয়টি সঠিক ভাবে বুঝতে পেরছেন।

    নতুন নতুন আর্টিকেল পেতে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। চোখ রাখুন আমাদের ফেসবুক পেজে।

    অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

    2 Comments

    দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন emoji

    টেকইনফো এ-আই কী?